,
শিরোনাম:
বিএনপি তাদের শাসনামলে যুদ্ধাপরাধী ও রাজাকার আলবদরদের সঙ্গে নিয়ে পাকিস্তানের দালাল হয়ে বাংলাদেশের জনগণকে শোষণ ও অত্যাচার করত : আইন মন্ত্রী আনিসুল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ম্যারাথন প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টিসিবির পণ্য বিক্রয় মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের গুরুত্ব ব্যাপক উপজেলা পরিষদের নির্বাচন আখাউড়ায় নির্বাচনী সভায় ভুড়িভোজের আয়োজন \ বিরিয়ানি মাদরাসায় দিলেন ম্যাজিস্ট্রেট ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১/ আহত-৫ এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল-জিপিএ-৫-এ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় সেরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আসামী ধরতে গিয়ে নারীর কপালে পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করল ডিবি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের কর্মী সমাবেশ চলাকালে সংঘর্ষে ৩ জন আহত স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনের লড়াইয়ে ছাত্রলীগকে সর্বতোভাবে পাশে থাকার আহ্বান-গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাস থেকে নবজাতক উদ্ধার

নব

বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাসের শহীদ মিনার এলাকার ঝোঁপ থেকে এক নবজাতককে উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার রাতে কে বা কারা ওই স্থানে নবজাতকটি ফেলে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে নবজাতকটিকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়। শজিমেক কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতায় প্রাণে বেঁচে যায় নবজাতকটি।

বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজের ক্যাম্পাস এলাকার পাশেই বেগম রোকেয়া নামের একটি ছাত্রী হোস্টেল রয়েছে। এছাড়া কলেজের আশপাশেও একাধিক ছাত্রীবাস রয়েছে।

জানা গেছে, রাত ১০টার দিকে ওই কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী শামীম রেজা ও এবিএম আবদুল্লাহ কলেজ ক্যাম্পাসে হাঁটতে বের হন। এসময় তারা ক্যাম্পাসের পাশেই থাকা শহীদ মিনার এলাকার একটি ঝোঁপ থেকে নবজাতকের কান্নার আওয়াজ শুনতে পান। পরে তারা ঝোঁপের কাছে গিয়ে সদ্যজাত কন্যা নবজাতকটিকে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশের জরুরি সেবা সার্ভিস ৯৯৯ এ ফোন করেন।

খবর পেয়ে বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জমানসহ পাশের স্টেডিয়াম ফাঁড়ি পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে তারা নবজাতকটিকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়।

২২ মার্চ শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বগুড়া শহরের ছিলিমপুর টাউন ফাঁড়ি পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আজিজ মণ্ডল এভরিনিউজকে জানান, নবজাতকটি উদ্ধারের পরপরই হাসপাতালের নবজাতক ও শিশু বিভাগে ভর্তি করা হয়। ওই বিভাগের চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে থাকে উদ্ধার করা নবজাতকটি। নবজাতকটির ঠোঁট ও তালু কাটা।

তিনি আরও জানান, বৃহস্পতিবার রাতে কোনো এক দম্পত্তি হাসপাতালে এসে ওই নবজাতককে দত্তক নিয়েছেন। তবে তিনি তাদের নাম-পরিচয় জানাতে পারেননি।

বগুড়া শহরের স্টেডিয়াম ফাঁড়ি পুলিশের পরিদর্শক মুস্তাফিজ হাসান এভরিনিউজকে জানান, নবজাতকের ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। কোথা থেকে কিভাবে ওই ঝোঁপের ভেতর নবজাতক এলো, এসব বিষয় সামনে রেখে তদন্ত কাজ চালছে। তবে শুক্রবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ওই নবজাতকের পরিচয় পায়নি তারা।

তিনি আরও জানান, নবজাতকের পরিচয় জানতে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতাল ছাড়াও আবাসিক এলাকা ও ছাত্রী হোস্টেলগুলোতে নানাভাবে বিভিন্ন মাধ্যমে খোঁজ-খবর চালানো হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Sorry, no post hare.