,
শিরোনাম:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে প্রবাসীর স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাড়ে ১০ ঘণ্টা পর গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক সরাইলে ফসলি জমিতে মিললো অজ্ঞাতনামার লাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ছায়েদুল হক স্বপন ও আখাউড়ায় মনির হোসেন জয়ী কসবা ও আখাউড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ব্যালট বাক্স ছিনতাই, প্রকাশ্যে সিলমারা, কেন্দ্র দখলের চেষ্টা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন কসবা-আখাউড়ায় বিভিন্ন অভিযোগে ২২ জনের কারাদন্ড কসবায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুই উপজেলায় পৌঁছে দেয়া হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা পর্যায়ে দুর্নীতি বিরোধী রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত অদম্য ইচ্ছাশক্তিই ভালো ফলাফলের প্রধান হাতিয়ার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থনে জাতীয় পার্টির নেতার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার

Brahmanbaria Pic 004 4 1

খবর সারাদিন রিপোর্ট : মোনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু কালাম আজাদ জেলা পরিষদ নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে এসে তিনি তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।
পাশাপাশি তিনি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুনকে সমর্থন জানান।
এ সময় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আল-মামুন সরকারসহ সংশ্লিষ্টরা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন।

চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারকারী আবু কালাম আজাদ নবীনগর উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সহ-সভাপতি। তিনি বর্তমানে নবীনগর উপজেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক কমিটির সদস্য।
একই দিনে সংরক্ষিত নারী আসনের ১জন সদস্যসহ সাধারণ আসনের ৭জন সদস্য প্রার্থীও তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।
মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারকারীরা হলেন সংরক্ষিত ১ নং ওয়ার্ডের ( নাসিরনগর, সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলা) সদস্য প্রার্থী মোসাম্মৎ হোসনা আক্তার নিপা। ১ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডের (নাসিরনগর উপজেলা) সদস্য প্রার্থী মহিদুজ্জামান, ৩ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডের (আশুগঞ্জ উপজেলা) সদস্য প্রার্থী মোঃ কাউছার আলম ও আলমগীর হোসেন ফরহাদ, ৭ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডের (কসবা উপজেলা) এম. মারুফ হাসান ও মোঃ হেলাল উদ্দিন এবং ৮ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডের (নবীনগর উপজেলা) সদস্য প্রার্থী মোঃ কবির হোসেন।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার শেষে বর্তমানে জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত নারী সদস্য ও সাধারণ সদস্যপদে মোট ৫৮জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ২জন, ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য পদে ৪৩জন এবং ৩টি সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য পদে ১৩জন।
চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকার এবং আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শফিকুল আলম।
শফিকুল আলম জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রশাসক। তিনি জেলা আওয়ামীলীজাম্মেল চৌধুরী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে,
আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য জেলা পরিষদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আল-মামুন সরকারের সমর্থনে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন জাতীয় পার্টির নেতা মোঃ আবু কালাম আজাদ।
গতকাল রোববার দুপুরে মনোনগের সাবেক সহ-সভাপতি।

চেয়ারম্যান পদে নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার শেষে জাতীয় পার্টির নেতা মোঃ আবু কালাম আজাদ বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫-(নবীনগর) আসনের সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুলের সম্মানার্থে আমি আমার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছি। পাশাপাশি আমি আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আল-মামুন সরকারকে আমার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে সমর্থন জানাচ্ছি। আগামী দিনে আমরা এক সাথে কাজ করবো।
এ ব্যাপারে জেলা পরিষদ নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মোঃ শাহগীর আলম বলেন, অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে। যারা এই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২৬ সেপ্টেম্বর প্রতীক বরাদ্দ ও আগামী ১৭ অক্টোবর ভোট গ্রহন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে মোট ভোটার ১৩৯৪ জন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার শেষে জেলা আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী আল-মামুন সরকারের সাথে করমর্দন করছেন জাতীয় পার্টির নেতা মোঃ আবু কালাম আজাদ।

 

শেয়ার করুন

Sorry, no post hare.