,
শিরোনাম:
Police Clearence Certificate (PCC)- পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট আবেদনের সঠিক নিয়ম ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তিভিত্তিক দুদিনব্যাপী কৃষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন ১০ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর সচল হল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গ্যাস সরবরাহ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় সরকারি কর্মকর্তা নিহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেনের ধাক্কায় বাবা নিহত মেয়ে আহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুকুর থেকে পলিথিনে মোড়ানো নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ। অর্ধশতাধিক আহত, আটক ২০ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত আওয়মীলীগ ছাড়া ডান পন্ত্রী কোন রাজনৈতিক দল নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করে না..গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী…. ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পূর্ব বিরোধের জেরে দুই গোষ্ঠির মধ্যে সংঘর্ষ, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট ,আটকঃ ৪

সোশ্যাল মিডিয়া একটি সাজানো দোকান……শামীমা চম্পা

প্রযুক্তির যুগে আমাদের সবাইকে ডিজিটালাইজেশনে আসতে হয়। আর এ আসা যাওয়া যেন বিরামহীন। ডিজিটাল জীবন উপভোগ করতে গিয়ে নিজেদের মূল্যবান কিছু হারিয়ে ফেলছি না তো? আমাদের হাতে যে স্মার্টফোনটা আছে, কেউ যদি বলে আগামী এক সপ্তাহ এর থেকে নিজেকে দূরে রাখো আমরা কি এতে রাজি হতে পারবো? মনে হবে এক সপ্তাহ না খেয়ে থাকতে পারবো তবুও ফোন হাতছাড়া করতে পারবো না। ফোনটা আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। একজন বাস্তব সঙ্গীর চেয়েও যেন এর গুরুত্ব বেশি। ফোনটা হাতে না থাকলে সবকিছু খালি খালি লাগে। কোথায় যেন এক বিশাল শূন্যতা কাজ করে। আমরা এতটাই আসক্ত এ ফোনের প্রতি। সকালবেলা ঘুম ভাঙার পরই ফোনটার কথা সবার আগে মনে আসে এবং বিছানায় থাকাবস্হাতেই আমরা ফেইসবুক, ইউটিউব, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম স্ক্রল করতে থাকি। এ যেন এক মধুর নেশা। এ নেশায় ডুব দিলে আর ভাসতে মন চাই না। আর এর এলগরিদম এমনভাবে সাজানো যে এর থেকে উঠতে চাইলে মনে হয় পায়ে শিকল বেঁধে আটকে রাখে। অথচ যারা এই জাদুকরী প্রযুক্তি দিয়ে দুনিয়ার কোটি কোটি মানুষকে মোবাইলের স্ক্রিনে বিরামহীন আটকে রাখে, তারা নিজেরা এ প্রযুক্তিতে কতটা আটকে আছে। জানা যায়, অ্যাপল ব্রান্ডের সিইও স্টিভ জবস্ তার পরিবারের সদস্যদের আইপ্যাড ব্যবহারের ক্ষেত্রে কখনোই স্বাধীনতা দেন না।এটি ব্যবহারে একটা নির্দিষ্ট সময় রাখা হয়েছে। এমনকি রাতে খাওয়ার টেবিলে কোনো প্রকার ডিভাইস হাতে থাকতে পারবে না বলেও নির্দেশ দেওয়া আছে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার দু’ঘন্টা আগে সকল প্রকার ডিভাইস থেকে দূরে থাকতে হবে। অথচ আমরা ঠিক উল্টো কাজটা করি প্রতিনিয়ত। রাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় না আসলে যেন ঘুমই আসবে না। কি কি ঘটে গেল তা না দেখলে কি করে হবে, মনে হবে আমি কিছু না জানা থেকে পিছিয়ে পড়লাম। আমাদের মানসিক অবস্থাটা এখন এরকম। গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই-ও তার পরিবারের কাউকে টেলিভিশন ও ডিভাইস ব্যবহারে অবাধ স্বাধীনতা দেন নি। মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের বেলায়ও একই কথা। ইউটিউবের সিইও, স্ন্যাপ চ্যাটের প্রতিষ্ঠাতা ইভান স্পাইগেলের শিশুদের জন্যও স্ক্রিন টাইম যথেষ্ট সীমিত। যারা এসবের কারিগর তারা কত হিসেব করে স্ক্রিন সময় কাটান। আর আমরা এতে ডুকলে ঘন্টার পর ঘন্টা কেটে যাই খেয়ালই থাকে না। আমরা চাইলে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সময় বাঁচিয়ে বাস্তব জীবনকে আরও প্রফুল্ল করতে পারি। এ সময়টা পরিবারের সাথে কাটাতে পারি। বাবা-মাকে ঘরের কাজে সাহায্য করতে পারি। সপ্তাহে অন্তত দু’টো ভালো বই পড়তে পারি, সময় বের করে একজন আত্মীয়কে দেখতে যেতে পারি, দু’জন ভালো বন্ধুর সাথে খোলা আকাশের নীচে বসে আড্ডা দিতে পারি, নিজের শখের কাজগুলোতে সময় দিতে পারি, কোরআন হাদিসের আলোকে নিজেকে পরিচালনার জন্য আমল করার চেষ্টা করতে পারি। বলছি না তথ্য প্রযুক্তি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিতে, কারণ সোশ্যাল মিডিয়াও এখন জ্ঞান অর্জনের একটি বড় মাধ্যম। শুধু খেয়াল রাখতে হবে প্রয়োজনের তুলনায় যেন অধিক সময় নষ্ট না হয়। একটা দোকানের সবকিছু যেমন আমাদের প্রয়োজন পড়ে না, সোশ্যাল মিডিয়াও তাই। এর সবকিছু আমাদের কাজে আসে না। এখান থেকে নিজের বুঝে যা যা তুলে নেওয়ার তাই তাই তুলে নাও। এর বাইরে আর কিছু না।
শেয়ার করুন

Sorry, no post hare.