,
শিরোনাম:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগের ধাওয়া পালটা ধাওয়া \ বেশ কয়েকজন আহত, ককটেল বিস্ফোরণ নবীনগরে তিন শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ নান্দনিক আবৃত্তির মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মাতিয়ে গেলেন ভারতের আবৃত্তি সংস্থা শ্রুতি সালিশ সভায় চেয়ারম্যানের নির্দেশে নারীকে নির্যাতন বিজয়নগরে বর্তমান ও সাবেক ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস পালিত জনপ্রতিনিধিদের ক্ষমতার পরিধির মধ্যে থেকে এলাকার উন্নয়নে কাজ করতে হবে- গণপূর্ত মন্ত্রী বৃক্ষায়নের জায়গা না রেখে নতুন বাড়ি বা ভবন নির্মাণের অনুমতি দেয়া হবে না- গণপূর্ত মন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদক কারবারের বিরোধে নারীকে হত্যা, গ্রেফতার ৩ আখাউড়া থানার হাজত কক্ষের গ্রিল ভেঙে পালিয়ে যাওয়া আসামি ফের গ্রেপ্তার৷ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শ্বাসরোধ করে কন্যাশিশুকে হত্যা করলো মা

জেলা পরিষদের নির্বাচন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২৩ সদস্য প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

Brahmanbaria Pic 001 8

খবর সারাদিন রিপোর্টঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সদস্য সমাপ্ত হওয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড ও সাধারণ ওয়ার্ডের ২৩ জন প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে সাধারণ ওয়ার্ডের ১৮জন ও সংরক্ষিত নারী আসনের ৫ জন সদস্য রয়েছেন।
জেলা পরিষদের ১নং সাধারণ ওয়ার্ডে (নাসিরনগর উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ১৭০টি। এই ওয়ার্ডে ফারুক মিয়া (উটপাখী প্রতিক) ২ ভোট এবং মোঃ সাদেকুর রহমান (টিউবওয়েল প্রতিক) ১৬ ভোট পেয়ে জামানত হারান।

২নং সাধারণ ওয়ার্ডে (সরাইল উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ১১৮টি। এই ওয়ার্ডে উত্তম কর্মকার (তালা প্রতিক) ১৩ ভোট ও মোহাম্মদ ইমরান মিয়া (বৈদ্যুতিক পাখা প্রতিক) কোন ভোট না পেয়ে (শুন্য ভোট) জামানত হারান।
৩নং সাধারণ ওয়ার্ডে (আশুগঞ্জ উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ১০৭টি। এই ওয়ার্ডে  জিল্লুর রহমান (তালা প্রতিক) কোন ভোট পাননি (শুন্য ভোট) এবং মোঃ মনিরুজ্জামান খাঁন (টিউবওয়েল প্রতিক) ১ ভোট পেয়ে জামানত হারান।

৪নং সাধারণ ওয়ার্ডে ( সদর উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ১৬১টি। এই ওয়ার্ডে আজহারুল ইসলাম (ক্রিকেট ব্যাট প্রতিক) ৩ ভোট, শাহাদাত খান (তালা প্রতিক) ১০ ভোট এবং সুধীর চন্দ্র ঘোষ (টিউবওয়েল প্রতিক) ১ ভোট পেয়ে জামানত  হারান।
৫নং সাধারণ ওয়ার্ডে (বিজয়নগর উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ১৩১টি। এই ওয়ার্ডে কাজী আশিকুর রহমান (টিউবওয়েল প্রতিক) ৬ ভোট এবং তফসিরুল ইসলাম (বক  প্রতিক) ২ ভোট পেয়ে জামানত হারান।

৬ নং সাধারণ ওয়ার্ডে (আখাউড়া উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ৮০টি। এই ওয়ার্ডে খন্দকার মোস্তাক আহমেদ (অটোরিকশা প্রতিক) ১ ভোট, মোহাম্মদ আলী ভ‚ইয়া (তালা প্রতিক) ১ ভোট এবং ইয়াছিন মিয়া (টিউবওয়েল প্রতিক) কোন ভোট না পেয়ে (শুন্য ভোট) জামানত হারান। ৭ নং সাধারণ ওয়ার্ডে (কসবা উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয় ১৪৩টি। এই ওয়ার্ডে আইয়ূব আলী ভ‚ইয়া (অটোরিকশা প্রতিক) ১ ভোট পেয়ে জামানত হারান।
৮নং সাধারণ ওয়ার্ডে (নবীনগর উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয়েছে ২৮৫টি। এই ওয়ার্ডে আতিকুর রহমান (হাতি প্রতিক) ২ ভোট এবং সফিকুল ইসলাম  (বৈদুতিক পাখা) ৩ ভোট পেয়ে জামানত হারান।

৯নং সাধারণ ওয়ার্ডে (বাঞ্ছারামপুর উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয়েছে ১৮৩টি। এই ওয়ার্ডে নূর মোহাম্মদ মোল্লা (ঘুড়ি প্রতিক) ৭ ভোট পেয়ে জামানত হারান।
সংরক্ষিত ১নং ওয়ার্ডে  (নাসিরনগর, সরাইল ও আশুগঞ্জ উপজেলা)  মোট ভোট কাষ্ট হয়েছে ৩৯৫ টি। এই ওয়ার্ডে মাহমুদা পারভীন (মাইক প্রতিক) ২১ ভোট পেয়ে জামানত হারান।
সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ডে (সদর, বিজয়নগর ও কসবা উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয়েছে ৪৩৮টি। এই ওয়ার্ডে ফেরদুছ আক্তার (হরিণ প্রতিক) ৯ ভোট ও রোমানা আক্তার (টেবিল ঘড়ি প্রতিক) ২০ ভোট পেয়ে জামানত হারান।
সংরক্ষিত ৩নং ওয়ার্ডে (আখাউড়া, নবীনগর ও বাঞ্ছারামপুর উপজেলা) মোট ভোট কাষ্ট হয়েছে ৫৪৭ টি। এই ওয়ার্ডে মাহমুদা আক্তার শিউলী (বই প্রতিক) ২৪ ভোট এবং মোছেনা বেগম ( দোয়াত কলম প্রতিক) ২৫ ভোট পেয়ে জামানত হারান।

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন অফিসার জিল্লুর রহমান বলেন, কোন প্রার্থী যদি বৈধ কাষ্টিং ভোটের ৮ ভাগের এক ভাগ ভোট যদি না পান তাহলে ওই প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।

উল্লেখ্য, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও সদস্য পদে মোট ৫৮জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা  করেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ২জন, জেলার ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে  ৪৩ জন এবং ৩টি সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে ১৩জন প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেন।

শেয়ার করুন

Sorry, no post hare.