,
শিরোনাম:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে প্রবাসীর স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাড়ে ১০ ঘণ্টা পর গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক সরাইলে ফসলি জমিতে মিললো অজ্ঞাতনামার লাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ছায়েদুল হক স্বপন ও আখাউড়ায় মনির হোসেন জয়ী কসবা ও আখাউড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ব্যালট বাক্স ছিনতাই, প্রকাশ্যে সিলমারা, কেন্দ্র দখলের চেষ্টা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন কসবা-আখাউড়ায় বিভিন্ন অভিযোগে ২২ জনের কারাদন্ড কসবায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে আহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দুই উপজেলায় পৌঁছে দেয়া হয়েছে নির্বাচনী সরঞ্জাম জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির উদ্যোগে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা পর্যায়ে দুর্নীতি বিরোধী রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত অদম্য ইচ্ছাশক্তিই ভালো ফলাফলের প্রধান হাতিয়ার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যুবকের পায়ের রগ কেটে হত্যা, আহত ১

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের

খবর সারাদিন রির্পোট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে জনি মিয়া (৩৫) নামের এক যুবককে পায়ের রগকেটে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার রাতে উপজেলার তালশহর পশ্চিম ইউনিয়নের তালশহর বাজারে এই নৃশংস ঘটনা ঘটে। নিহত জনি মিয়া ওই এলাকার মোঃ মকসেন মিয়ার ছেলে। এসময় আওয়াল মিয়া নামের (৪৭) আরও একজন গুরুতর আহত হন।
নিহতের চাচাত ভাই মোঃ বিদ্যুৎ ও পরিবারের অভিযোগ, জনি মিয়া ও আওয়াল মিয়া রাত ১০টার দিকে তালশহর বাজার থেকে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। পথিমধ্যে বাজার সংলগ্ন সেতু অতিক্রম করতেই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবু সামার নির্দেশে তার দুই ছেলে সাচ্চু মিয়া ও আমির হোসেনসহ তাদের দলবল অতর্কিতভাবে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এসময় জনি মিয়ার দুই পায়ের রগ কেটে ফেলে এবং সাথে থাকা আওয়ালকেও কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে জরুরি বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক তাদের ঢাকায় প্রেরণ করেন। তারা ঢাকায় যাওয়ার পথে রাত ২টার দিকে নরসিংদীতে জনি মিয়া মারা যান।
তালশহর পশ্চিম ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সোলাইমান মিয়া অভিযোগ করে বলেন, জনি আমার একজন কর্মী ছিলেন। ২০২২ সালে ৫ জানুয়ারি নৌকা প্রতিক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই। এরপর থেকেই সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবু সামা তার ছেলেরা সোলাইমান মিয়া ও তার কর্মীদের উপর ক্ষুব্ধ ছিল। এরই জের ধরে সোমবার রাতে আবু সামা ও তার ছেলেরা এই হত্যাকান্ড চালায়। এদিকে দুপুরে হত্যাকান্ডের বিচারের দাবীতে মাথায় কাফনের কাপড় পড়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মর্গের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে প্রেসক্লাবের সামনে এসে শেষ হয়।
এ বিষয়ে জানতে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবু সামা (০১৭১১৩৫৭৫৪৪) ও তার ছেলে সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আমির হোসেন (০১৭১৩৬১৩৫৯৫) এর মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন দিলেও তাদের ফোনের বন্ধ পাওয়া যায়।
আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাহিদ আহমেদ বলেন, নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। এই বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অভিযোগ স্বাপেক্ষে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Sorry, no post hare.