,
শিরোনাম:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রলীগ কর্মী হত্যার মুল হোতা ফারাবি অস্ত্রসহ গ্রেফতার…… ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রলীগ কর্মীকে গুলি করে হত্যার জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গুলি করে ছাত্রলীগ কর্মী হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের গুলিতে নিহত ছাত্রলীগ কর্মীর বাড়িতে জেলা আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রলীগ কর্মীকে গুলি করে হত্যার পর গা ঢাকা দিয়েছে ঘাতকরা, পরিবারে শোকের মাতম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিন উপজেলায় বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান হলেন যারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিজয় মিছিলে প্রকাশ্যে গুলি, ছাত্রলীগ কর্মী নিহত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিন উপজেলায় চলছে নির্বাচনী সরঞ্জাম বিতরণ…… ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পিকআপ ভ্যান চাপায় অটোরিকশার দুই যাত্রী নিহত বাঞ্ছারামপুরে সিরাজুল ইসলাম তৃতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান, আশুগঞ্জে জিতলেন জিয়াউল করিম সাজু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভাইয়ের কামড়ে ভাইয়ের মৃত্যু

download
খবর সারাদিন রির্পোট: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বড় ভাইয়ের কামড়ে গোলাপ মিয়া-(৩৫) নামে ছোট ভাইয়ের
মৃত্যু হয়েছে। গত সোমবার রাতে সদর উপজেলার বুধল ইউনিয়নের
খাঁটিহাতা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নিহত গোলাপ মিয়া খাঁটিহাতা
গ্রামের মনসুর আলীর ছেলে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী সোমা বেগম বাদি
হয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে দুইজনকে আসামী করে সদর মডেল থানায় একটি
মামলা দায়ের করেন।
স্থানীয় সূত্র ও পুলিশ জানায়, মৃত গোলাপ মিয়া খাঁটিহাতা বাজারের
নৈশ প্রহরী ছিলেন। তিনি ছিলেন মাদকসেবী। স্থানীয়রা গোলাপকে মাদক
সেবন করতে নিষেধ করলে সে স্থানীয়দের সাথে অশোভন আচরন করতো।
সোমবার দুপুরেও গোলাপ স্থানীয় একজনের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। পরে ওই
ব্যক্তি গোলাপের বড় ভাই মঞ্জুর আলীর কাছে নালিশ করেন। সোমবার সন্ধ্যার
দিকে মঞ্জুর আলী গোলাপকে ডেকে মাদক গ্রহন ও মানুষের সাথে যেন খারাপ
ব্যবহার না করে সেই কথা বললে গোলাপ মঞ্জুর আলীর সাথেও খারাপ ব্যবহার করে।
এ নিয়ে দুই ভাইয়ের মধ্যে প্রথমে কথা কাটাকাটি ও পরে হাতাহাতির ঘটনা
ঘটে। এক পর্যায়ে গোলাপ মিয়া মাটিতে পড়ে গেলে মঞ্জুর আলী গোলাপ
মিয়ার কানে কামড় দিয়ে রক্তাক্ত করে।
পরে রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয়রা গোলাপ মিয়াকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা
বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালের
কর্তব্যরত চিকিৎসক গোলাপ মিয়ার কানে ১৫টি সেলাই দিয়ে তাকে
উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার করেন।
গোলাপের স্বজনরা তাকে ঢাকায় না নিয়ে শহরের একটি বেসরকারি
ক্লিনিকে তাকে ভর্তি করে। রাত ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায়
গোলাপ মিয়া মারা যায়।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)
মোঃ আসলাম হোসেন বলেন, এ ঘটনায় মৃতের স্ত্রী সোমা বেগম বাদি
হয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে ঘাতক বড় ভাই মঞ্জুর আলী-(৪২) ও তার স্ত্রী
আছিয়া বেগম-(৪০) কে আসামী করে সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের
করেছেন। পুলিশ আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে। মৃত গোলাপ মিয়ার লাশ
ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা
হয়েছে।
শেয়ার করুন

Sorry, no post hare.